হাতি মারার অর্থ ব্যয় হবে ন্যাশনাল পার্কের উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণে

করোনা ভাইরাসজনিত উদ্ভূত পরিস্থিতির ক্ষতি পোষাতে চলতি বছেরর মধ্যে এবার ৫০০ হাতি মারার অনুমতি দিয়েছে জিম্বাবুয়ে। এই সপ্তাহে দেশটির সরকার জানিয়েছে চলতি বছেরর মধ্যে এসব হাতি মরা হবে।
হাতি মারার অর্থ ব্যয় হবে ন্যাশনাল পার্কের উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণে
হাতি মারার অর্থ ব্যয় হবে ন্যাশনাল পার্কের উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণে

শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম সিএনএন এ খবর জানিয়েছে।

জিম্বাবুয়ের পার্কস অ্যান্ড ওয়াইল্ডলাইফ ম্যানেজমেন্ট অথরিটিরি মুখপাত্র তিনাশে ফারাও জানান, করোনাকালীন পর্যটন থেকে আয়ের ক্ষতি পোষাতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
এমন অর্থবর্ধক সিদ্ধান্ত বন্যপ্রাণ সংরক্ষণে সাহায্য করবে মনে করছে কর্তৃপক্ষ।

বন্যপ্রাণী রক্ষণাবেক্ষণে দেশটির আড়াই কোটি ডলারের বাজেট দরকার হয় বলে জানান ফারাও। তবে এই বাজেট আরো বাড়ছে বলেও জানান।

কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রায় আড়াই কোটি ডলারের বাজেট দরকার কার্যক্রম চালানো জন্য। বিত্তশালীদের ‘শিকারের’ সুবিধা করে দিয়ে সে অর্থের একটা অংশ আয় করতে চান তারা।

পরিবেশ ও প্রাণী অধিকার বিষয়ক গ্রুপের মতে, সংরক্ষণের নামে ট্রফি হান্টিং পরস্পরবিরোধী সিদ্ধান্ত। এর বদলে আরো উদ্ভাবনীমূলক ও পরিবেশবান্ধব পরিকল্পনার পরামর্শ দেওয়া হয়।

তবে এ উদ্যোগের প্রতিবাদ জানিয়েছে দেশটির পরিবেশ ও প্রাণী অধিকার বিষয়ক গ্রুপ সেন্টার ফর ন্যাচারাল রিসোর্স গভর্নেস।

আইইউসিএন আফ্রিকান বন্যহাতিকে ‘অতি বিপন্ন’ ও সাভানা হাতিকে ‘বিপন্ন’ ঘোষণার সপ্তাহ না যেতেই জিম্বাবুয়ে এ ঘোষণা দিলো।  

প্রতিটি হাতি আকৃতি ভেদে বিক্রি হবে বা শিকারের জন্য শিকারিকে দিতে হবে ১০ থেকে ৭০ হাজার ডলার (১ ডলার=৮৫ টাকা) করে।

অর্জিত অর্থ ন্যাশনাল পার্কের উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্যই ব্যয় হবে।
বিশ্বের সবচেয়ে বেশি হাতিবহুল দেশ বতসোয়ানা। এর পরেই আছে জিম্বাবুয়ে। হাতি শিকার থেকে আয়ের জন্য পরিবেশবাদীদের কাছে বিশ্বব্যাপী সমালোচিত দেশ দুটি।
আফ্রিকান এই দেশটিতে এখনো লাখের কাছাকাছি হাতি আছে।
এসব হাতি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি করে বলে অভিযোগ রয়েছে। মানুষ আক্রমণ থেকে বাঁচতেও এদের মেরে ফেলে।  

চলতি বছর এখন পর্যন্ত এক হাজার অভিযোগ এসেছে পার্ক কর্তৃপক্ষের কাছে।

ফারাও বলেন, চলতি বছর এখন পর্যন্ত হাতির আক্রমণে ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত বছর মারা যায় ৬০ জন।
এর আগে, গত ডিসেম্বরে ১৭০টি ‘উচ্চ মূল্যের’ হাতি হত্যার অনুমোদন দেয় নামিবিয়া।
বে অব বেঙ্গল নিউজ / Bay of bengal news