বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় পরিচালক শহিদুল ইসলাম খোকনের মৃত্যুবার্ষিকী ছিল আজ

বাংলাদেশের বানিজ্যিক ধারার চলচ্চিত্রের সবচেয়ে জনপ্রিয় পরিচালক কে? এই প্রশ্নে অনেকের  নামই আসবে,তবে একজনের নাম সম্ভবত বেশিই আসবে। তর্কসাপেক্ষে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় পরিচালক বলা ঠিক হবে কিনা জানি না, তবে জনপ্রিয়তার শীর্ষদের একজন শহিদুল ইসলাম খোকন সেটা নিশ্চিত করেই বলা যায়।
বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় পরিচালক শহিদুল ইসলাম খোকনের মৃত্যুবার্ষিকী ছিল আজ
বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় পরিচালক শহিদুল ইসলাম খোকনের মৃত্যুবার্ষিকী ছিল আজ

শহিদুল ইসলাম খোকন, বাংলাদেশে মার্শাল আর্ট জনপ্রিয়তার অবদান অনেকখানি তার। প্রথম ছবি রক্তের বন্দী ফ্লপ, তারপর গুরু সোহেল রানার পরামর্শে মার্শাল আর্ট নিয়ে চলচ্চিত্র বানান ‘লড়াকু‘, একই ছবিতে অভিষেক হয়েছিল চিত্রনায়ক রুবেল। এরপর খোকন- রুবেল জুটি যে কোথায় গিয়ে ঠেকেছিল সাফল্যে সেটা যারা নিজ চোখে দেখেছে তারা বলতে পারবে।

নব্বইয়ের দশকে এ দুজনের সঙ্গে যুক্ত হলেন হুমায়ুন ফরিদী। রুবেল-খোকন-ফরিদী এই ত্রয়ীর ছবি মানেই দর্শকদের আগ্রহ তুঙ্গে। বীর পুরুষ, বিপ্লব, সন্ত্রাস, বজ্রমুষ্টি, উত্থান পতন আরো অনেক ছবি।

শুধু যে মার্শাল আর্ট ভিত্তিক ছবি করেছেন তা নয়, মুক্তিযুদ্ধের পরের সময় নিয়ে ঘাতক ও কমান্ডার বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ঘাতক ছবিতে খলিলের করা চরিত্রটি বঙ্গবন্ধু থেকে অনুপ্রাণিত, রাজাকার গোলাম আজম থেকে অনুপ্রাণিত হুমায়ুন ফরিদীর চরিত্রটি, তেমনি কমান্ডার ছবিতে সোহেল রানার চরিত্রটি জিয়াউর রহমান কে অনুসরণ করে বানানো।

‘পালাবি কোথায়’ উনার নির্মিত জনপ্রিয় ছবিগুলোর একটি,উনার সবচেয়ে ব্যতিক্রমী সিনেমা এটি। নারী কেন্দ্রিক এই ছবিতে শাবানা, সুবর্ণা মুস্তাফা ও চম্পাকে একত্রিত করেছিলেন। শোনা যায়,হুমায়ুন ফরিদীর চরিত্রটি জেনারেল এরশাদের চরিত্র থেকে অনুপ্রাণিত।

ক্যারিয়ারে বেশিরভাগ সিনেমাই জনপ্রিয় হয়েছে। সিনেমা হলে কম বেশি যাই ব্যবসা করুক, টিভি বা ভিসিডিতে বেশিরভাগ সিনেমাই গ্রহণযোগ্যতা বেশি। যেমন ম্যাডাম ফুলি, এটার জনপ্রিয়তা এখনো আছে। ‘ভন্ড‘ সম্ভবত উনার সবচেয়ে বেশি আয় করা ছবি। একটা সময় পর বৈচিত্র্য আনতে লাল সবুজ ও বাঙলার মত ছবি বানিয়েছেন।

বিশ্বপ্রেমিক, রাক্ষস, অপহরণ, দুঃসাহস, সতর্ক শয়তান, পাগলা ঘন্টা, টাকা, স্বপ্নপূরণ আরো বেশকিছু ছবি বানিয়েছেন। শেষের ছবিগুলোতে মনোযোগ দিতেন কম এটা সত্যি,তবে তার আগের ছবির জয়রথে সেইগুলা উতরে যায়।

আফসোসের বিষয় তিনি কখনোই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান নি, তবে উনার ছবিতে অভিনয় করে সিমলা, মাহফুজ আহমেদ রা পুরস্কার পেয়েছেন।

আজ ৪ এপ্রিল, শহিদুল ইসলাম খোকনের মৃত্যুবার্ষিকী৷ ২০১৬ সালে তিনি পরপারে চলে যান।

বে অব বেঙ্গল নিউজ / bay of bengal news

বে অব বেঙ্গল নিউজ - Bay of Bengal News

বে অব বেঙ্গল নিউজ