সারাদেশে গত ২৪ ঘন্টায় করোনা শনাক্ত ১০৪৩ জন ও মৃত্যু ৩৮ জনের

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৩৮ জন রোগীর। এ নিয়ে সারাদেশে সরকারি হিসেব মতে, এখন পর্যন্ত ১২ হাজার ৫৪৯ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে এ মাসের ২ সপ্তাহে সারাদেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরো ৫০০ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরো এক হাজার ৪৩ জন ব্যক্তির শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।
দেশে আজ করোনাভাইরাসে সর্বোচ্চ মৃত্যু ১০১ জন

সারাদেশে করোনাভাইরাসের এ পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার (২৯ মে) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পাঠানো নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

সারাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের বিস্তার ঠেকাতে পূর্ব ঘোষিত সরকারের বিধিনিষেধের মধ্যেই গত ১১ মে করোনায় মৃতের সংখ্যা বার হাজার জনে ছাড়িয়ে যায়। এরপর আরো ৫০০ জন মৃতের সংখ্যা যোগ হতে সময় লেগেছে মাত্র ১৭ দিন।

প্রসঙ্গত গত ১৯ এপ্রিল সারাদেশে সর্বোচ্চ ১১২ জনের মৃত্যু হয় এই ভাইরাসে। এদিকে গত ২৭ এপ্রিল সারাদেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা সাড়ে ৭ লাখ পেরিয়ে যায়। আর ৭ এপ্রিল সারাদেশে সর্বোচ্চ সাত হাজার ৬২৬ জন করোনাভাইরাস পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর তাদের বিজ্ঞপ্তির বরাতে বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্তের হার ৭.৯১ শতাংশ, আর এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাস শনাক্তের হার ১৩.৪৮ শতাংশ। এদিকে ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে করোনা শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯২.৪৮ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় সারাদেশে মৃত্যু হার ১.৫৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে ভাইরাসটির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে বার হাজার ৬১১টি এবং পরীক্ষা করা হয়েছে ১৩ হাজার ১৮৪টি। সারাদেশে এখন পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৯ লাখ ১৫ হাজার ৫৮টি।

সারাদেশে বর্তমানে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে ৫০২টি পরীক্ষাগারে জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানান, এরইমধ্যে ১২৯টি পরীক্ষাগারে আরটি-পিসিআরের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হচ্ছে, আর ৪৩ টি পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করা হচ্ছে জিন এক্সপার্ট মেশিনের মাধ্যমে এবং ৩০০টি পরীক্ষাগারে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেনের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হচ্ছে।

এদিকে নারী-পুরুষ বিবেচনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৮ জনের মধ্যে মারা যাওয়া ২৮ জন পুরুষ, আর ১০ জন নারী।

মারা যাওয়াদের মধ্যে ১৯জন রোগী ষাটোর্ধ্ব, ৬ জন রোগী ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, ৯ জন রোগী ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে এবং ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৪ জন রয়েছেন।

বিভাগ বিবেচনায় মৃত্যুবরণকারী ৩১ জনের মধ্যে ৮ জন ঢাকা বিভাগে ও ৪ জন করে মারা গেছে চট্টগ্রাম ও রংপুরে, রাজশাহী ও খুলনায় ৭ জন, সিলেটে ৫ জন করে, ময়মনসিংহে ২ জন এবং ১ জন বরিশাল বিভাগে।

এদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে ৩৫ জনের, বেসরকারি হাসপাতালে মারাবগেছেন ২ জন এবং ১ জন বাড়িতে মারা গেছেন।

bay of bengal news / বে অব বেঙ্গল নিউজ